দিনেশ কার্তিকে স্বপ্ন ভঙ্গ বাংলাদেশের

বাংলাদেশ আরেকটা ফাইনালে জয় বঞ্চিত হল। ২০১২ এশিয়া কাপের পর আরেক বার বেদনায় নীল সাকিব-মুশফিকরা। দিনেশ  কার্তিক এর ৮ বলে ২৮ রানের ঝড়ো ইনিংস বাংলাদেশকে ৪ উইকেটে হারাল ভারত।

১৬৭ রানের লক্ষ্যে নেমে রোহিত শর্মার ব্যাটে ঝড়ো সূচনা করেছিল ভারত। মাত্র ১৫ বলে ৩২ রানের ঝড় সূচনা করে ভারত। এমন অবস্থায় আউট হন শিখর ধাওয়ান। ৭ রান করা ধাওয়ান সাকিব আল হাসানের বলে  এবং আরিফুল হকের ক্যাচে মাঠ ছারেন। রানের খাতা খোলার আগেই আগেই সুরেশ রায়না আউট। পরের ওভারে রুবেল হোসেনের বল লেগ সাইড দিয়ে বেরিয়ে যাওয়া বলে ব্যাট ছুঁইয়ে মুশফিকের গ্লাভসবন্দী হন তিনি। কিন্তু আম্পায়ার ওয়াইডের ভুল সিদ্ধান্ত দেয়। মুশফিক রিভিউ নিলে সিদ্ধান্ত  বাংলাদেশের পক্ষে যায়। ২ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে যায় ভারত। সেই বিপদ থেকে উদ্ধার করেন রোহিত আর লোকেশ রাহুল। তারা করেন ৫১ রানের জুটি। দলীয় ৮৩ রানে রাউলকে আউট করে এই জুটিতে ভাঙ্গেন।নাজমুল ইসলাম ১৩তম ওভারে রোহিতকে মাহমুদউল্লাহর ক্যাচ বানান। মাঠ ছাড়ার আগে রোহিতের সগ্রহ ছিল ৪২ বলে  ৫৬ রান।

১১, ১২, ১৩ এই তিন ওভারে ভারত মাত্র ১০ রান সগ্রহ করার ফলে ধীরে ধীরে ম্যাচ বাংলাদেশের দিকে হেলতে শুরু করে।

শেষ দুই ওভারে জয়ের জন্য ভারতের প্রয়োজন ৩৪ রান। ম্যাচ আনেকটাই বাংলাদেশের হাতে। ১৯ তম ওভারে বল করতে আসলেন তিন ওভারে ১৩ রান দেয়া রুবেল হোসেইন। কিন্তু তার এই এক ওভার থেকেই আসে ২২ রান। সদ্য মাঠে নামা দিনেশ কার্তিক রুবলের প্রথম তিন বলেই বাউন্ডারি হাঁকান। এই ওভার থেকে দুটি ছয়, দুটি চার এবং ২ রান সিঙ্গেলে মোট ২২ রান আসে। সর্বশেষ ওভারে ভারতের জিততে হলে দরকার ১২ রান। বল করতে আসেন পার্টটাইম বলার সৌম্য সরকার। প্রথম ৫ বলে সাত রান দিয়ে তুলে নেন এক উইকেট। কিন্তু শেষ বলে ছয় মেরে বাংলাদেশের আরও একবার স্বপ্ন ভঙ্গ কারান দিনেশ কার্তিক। ভারত চার উইকেটে জয়লাভ করে।

নিদাহাস ট্রপি ফাইনালে টসে হেরে বেট করে শুরুতে ভালই সূচনা করে বাংলাদেশ। তামিম ইকবাল আর লিটন দাস এই দুই ওপেনার জুটি  ১৯ বলে ২৭ রান করেন।কিন্তু ৩৩ রানে ৩ উইকেট পরে যায়। ৩৩ রানে তিন উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ তখন বিপদে পরে যায়। সেখান থেকে মুশফিকুর রহীম এবং সাব্বির রহমান এই জুটি ৩৫ করেন। কিন্তু অফস্ট্যাম্পের অনেক বাইরের বল মারতে গিয়ে চাহালের বলে আউট হন মুশফিকুর রহীম। সাব্বির রহমান ৭৭ রানের এবং শেষ ওভারে মেহেদী হাসান মিরাজ  ১৮ রানের  ঝড়ো ইনিংসের ভর করে ১৬৬ রানের লড়াকু পুঁজি গড়তে পেরেছে টাইগাররা।

বাংলদেশের পক্ষে তামিম ইকবাল করেন তের বলে পনের রান, লিটন দাস  করেন নয় বলে এগার রান, সাব্বির রহমান  করেন পঞ্চাশ বলে সাত্তুর রান, মাহমুদুল্লাহ করেন ষোল বলে একুশ রান এবং মেহেদী হাসান মিরাজ  করেন সাত বলে ঊনিশ রান। ভারতে হয়ে রোহিত শর্মা বেয়াল্লিশ বলে ছাপ্পান্ন, লোকেশ রাহুল চোদ্দ বলে চোব্বশ, মনিশ পান্ডে সাতাশ বলে আঠাশ এবং দিনেশ কার্তিক আট বলে ঊনত্রিশ রান করেন।

SHARE